কক্সবাজারে শুরু হয়েছে মানবিক নীতি প্রদর্শনী



কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে শুরু হয়েছে, ‘মানবিক নীতি: এখানে এবং এখন’ শীর্ষক প্রদর্শনী। বাংলাদেশে সুইজারল্যান্ডের দূতাবাস, ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অব দ্য রেড ক্রস (আইসিআরসি),বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর এবং সুইজারল্যান্ডের লুসানের ফটো এলিসি মিউজিয়ামের সহযোগিতায়, যৌথভাবে ‘মানবিক নীতি: এখানে এবং এখন’ শীর্ষক প্রদর্শনীটি (আর্ট ক্লাব) আয়োজিত হয়।

বৃহস্পতিবার (০ জুন) প্রদর্শনীটি উদ্বোধন করেন সুইজারল্যান্ড দূতাবাসের চার্জ ডি’অ্যাফেয়ার্স মিস সুজান মুলার, অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. শামসুদ দৌজা এবং কক্সবাজারে আইসিআরসির অফিস প্রধান মানিশ দাস।

মানবিক সংকটে মানুষ কীভাবে দুর্দশাগ্রস্তদের ব্যক্তিগত বা সামষ্টিকভাবে সহায়তা করতে পারে? ‘মানবিক নীতি: এখানে এবং এখন’ শীর্ষক সমকালীন এই শিল্প উপস্থাপনা ও প্রদর্শনীটি, সেই সব মানবিক ও ব্যক্তিগত আবেগ এবং অনুসন্ধানের উত্তর খুঁজতে সাহায্য করে।

আয়োজকরা বলছেন, “নির্বাচিত ভিডিও ও আলোকচিত্রের এই প্রদর্শনীটি, দৈনন্দিন জীবনে মানবিক নীতির গভীর অন্তর্দৃষ্টি ও তাৎপর্য এবং স্থানীয় প্রেক্ষাপটে এর প্রভাব সম্পর্কে দর্শকদের অনুপ্রাণিত করবে। প্রদর্শনীটি, মানবতা, পক্ষপাতহীনতা, নিরপেক্ষতা এবং স্বাধীনতা- এই চারটি মানবিক নীতিবিষয়ক আলোচনা এবং মতামত প্রকাশের একটি স্থান ও সুযোগ তৈরি করবে।”

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সুইজারল্যান্ড দূতাবাসের চার্জ ডি’অ্যাফেয়ার্স মিস সুজান মুলার বলেন, “মানবিক নীতিগুলো সুইজারল্যান্ডের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ; যা বাংলাদেশের সঙ্গে আমাদের পাঁচ দশকব্যাপী দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ক্ষেত্রে একটি মুখ্য ভূমিকা রেখেছে। সুইজারল্যান্ড ২০১৭ সাল থেকে, বাংলাদেশে রোহিঙ্গা ও (কক্সবাজারের) স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে পাঁচ কোটি ডলারের বেশি সহায়তা প্রদান করেছে। মানবিক সহায়তা প্রদান, উন্নয়ন সহযোগিতা প্রকল্প বাস্তবায়ন এবং এই সংকটের টেকসই সমাধান নিশ্চিত করতে, একযোগে কাজ করার ক্ষেত্রে আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।”

মিস সুজান মুলার আরও বলেন, “দুই দেশের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তিকালীন সময়ে, এই প্রদর্শনীটি বাংলাদেশের সঙ্গে সুইজারল্যান্ডের শক্তিশালী এবং বহুমাত্রিক সম্পর্কের একটি প্রধান ক্ষেত্রকে তুলে ধরেছে।”

কক্সবাজারে আইসিআরসির অফিস প্রধান মানিশ দাস বলেন, “আইসিআরসির কার্যক্রমের মূলে রয়েছে মানবিক নীতি। এগুলোই হলো ভিত্তি, যা আইসিআরসিকে ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীর আস্থাভাজন হয়ে, তাদের মানবিক চাহিদাগুলিকে সর্বোত্তম উপায়ে বোঝার এবং সমাধান করার চেষ্টা করার জন্য পরিচালিত করে।”

মানিশ দাস বলেন, “আমি আশা করি এই প্রদর্শনী মানবিক নীতির গুরুত্ব তুলে ধরে, সেগুলোর সঙ্গে মানুষের একাত্মতা তৈরি করতে সহায়তা করবে।”

আয়োজকরা বলেন, “প্রদর্শনীতে আলোকচিত্র এবং প্রামাণ্যচিত্রের মাধ্যমে শিল্পীরা তাদের নূতন, স্থানিক এবং সমসাময়িক দৃষ্টিকোণ থেকে মানবিক নীতিগুলোর প্রভাব পর্যবেক্ষণ করেন। প্রদর্শিত ছবিগুলোতে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ এবং বিগত ৫০ বছরে বাংলাদেশে আইসিআরসি এবং সুইজারল্যান্ডের ভূমিকা ও কার্যক্রমের প্রতিফলন ঘটেছে। এছাড়া, এতে সুইজারল্যান্ডের ১০ জন আলোকচিত্রীর নির্মিত ১০টি মৌলিক শর্ট ফিল্ম রয়েছে; রয়েছে, পুরস্কারপ্রাপ্ত ৬টি আলোকচিত্র।”

প্রদর্শনীটি ৯ জুন থেকে ১৮ জুন ২০২২, প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।



Source link

maria

এই যে, এই প্রবন্ধ পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ. আমি একজন ওয়েব ডেভেলপার, 10 বছর ধরে লিখছি, এবং একজন প্রযুক্তি প্রেমী।