গোলাবারুদের ঘাটতি দেখা দিয়েছে বলে জানাল ইউক্রেন



ইউক্রেনের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, রাশিয়ার বাহিনীর সাথে যুদ্ধে তাদের সেনাবাহিনীর গোলাবারুদ ফুরিয়ে যাচ্ছে। দেশটির দক্ষিণে যুদ্ধক্ষেত্রের কাছে মাইকোলাইভ অঞ্চলের, আঞ্চলিক গভর্নর ভিটালি কিম জরুরি আন্তর্জাতিক সামরিক সহায়তার আবেদন জানিয়েছেন।

ভিটালি কিম বলেছেন, “রাশিয়ার সেনাবাহিনী অনেক শক্তিশালী, তাদের প্রচুর আর্টিলারি এবং গোলাবারুদ রয়েছে। আর আপাতত, এটি আর্টিলারির যুদ্ধ… এবং আমাদের কাছে যুদ্ধ চালিয়ে যাবার মতো পর্যাপ্ত গোলাবারুদ নেই। তাই ইউরোপ এবং আমেরিকার সাহায্য আমাদের এই মুহূর্তে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।”

ইউক্রেন আরও অস্ত্র পাওয়ার বিষয়ে অন্যান্য দেশের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী, দ্যমিত্রো কুলেবা শনিবার একটি টুইট বার্তায় বলেছেন, তিনি ভবিষ্যতে ভারী অস্ত্র সরবরাহের বিষয়ে আলোচনা করতে, পোল্যান্ডের পররাষ্ট্র মন্ত্রী জেবিগনিউ রাউ-এর সাথে কথা বলেছেন। কুলেবা বলেন, দু’জন রাশিয়ার ওপর ইইউ’র আরেক দফা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার বিষয়েও আলোচনা করেছেন।

এ দিকে যুদ্ধক্ষেত্রে, ডনবাস অঞ্চলে ভয়ানক লড়াই চলছে। ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী দক্ষিণে রুশ-অধিকৃত খেরসন অঞ্চলে বেশ কয়েকটি পাল্টা আক্রমণ শুরু করলে, দু’পক্ষের মধ্যে তুমুল লড়াই শুরু হয়।

অন্যদিকে, সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত শাংরি-লা এশিয়া নিরাপত্তা সম্মেলন শাংরি-লা সংলাপে প্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে এক ভাষণে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেন্সকি বলেছেন, রুশ অবরোধের কারণে, ইউক্রেন খাদ্য সরবরাহ চালিয়ে যেতে হিমশিম খাচ্ছে এবং এর ফলে বিশ্বের কিছু অংশ “তীব্র এবং গুরুতর খাদ্য সংকটের সম্মুখীন হচ্ছে এবং দুর্ভিক্ষের দিকে যাচ্ছে”

সম্মেলনে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন শনিবার ইউক্রেনের জন্য আরও আন্তর্জাতিক সমর্থনের জন্য আহ্বান জানিয়ে বলেন, রাশিয়ার আগ্রাসন জাতীয় সার্বভৌমত্ব এবং বৈশ্বিক ব্যবস্থার উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলছে। তিনি উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন যে, বিশ্ব ইউক্রেনের বিরুদ্ধে রাশিয়ার যুদ্ধ থেকে তার মনোযোগ সরাতে শুরু করতে পারে।



Source link

maria

এই যে, এই প্রবন্ধ পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ. আমি একজন ওয়েব ডেভেলপার, 10 বছর ধরে লিখছি, এবং একজন প্রযুক্তি প্রেমী।