বলিভিয়ার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ১০ বছরের কারাদন্ডে দন্ডিত



বলিভিয়ার প্রাক্তন অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট জিনাইন অ্যানেজকে আদালত শুক্রবার ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ যে তিনি ২০১৯ সালে সহিংস বিক্ষোভের মধ্য দিয়ে পূর্বসূরি ইভো মোরালেসকে পদত্যাগ এবং নির্বাসনে যেতে বাধ্য করে নিজে কার্যভার গ্রহণ করেছিলেন।

অ্যানেজ নিজেকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করে দায়িত্ব পালনে অবহেলা এবং সংবিধানের বিরুদ্ধে কাজ করার জন্য আদালত কর্তৃক দোষী সাব্যস্ত হন। মোরালেস এবং তার দল অ্যানেজ এর দলের এই কাজকে একটি অভ্যুত্থান বলে অভিহিত করে ।

অ্যানেজের সমর্থকরা অস্বীকার করে যে এটি একটি অভ্যুত্থান ছিল, তাদের মতে মোরালেসের ক্ষমতার অপব্যবহার রাজপথে একটি বৈধ বিদ্রোহের সূত্রপাত করেছিল। তারা দাবি করে, বলিভিয়ার প্রথম আদিবাসী প্রেসিডেন্ট এবং তার ভাইস প্রেসিডেন্টকে ক্ষমতাচ্যুত করার ফলে একটি ক্ষমতার শূন্যতা তৈরি হয়েছিল যার ফলে অ্যানেজকে সেনেটের দ্বিতীয় প্রেসিডেন্ট হিসাবে অন্তর্বর্তী রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহণ করতে হয়েছিল। ডিফেন্স জানিয়েছে যে তিনি এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল করবেন।

অ্যানেজ, যে কারাগারে তাকে বন্দী করা হয়েছে সেখান থেকে বলেছেন, “আমি প্রেসিডেন্ট হওয়ার জন্য একটি আঙুলও তুলিনি, তবে আমি দেশকে শান্ত করার জন্য যা করতে হয়েছিল তা করেছি, যে দেশ ফেলে মোরালেস পালিয়ে গিয়েছিলেন।

২০ অক্টোবরের একটি নির্বাচনে সন্দেহভাজন ভোট কারচুপির জন্য দেশব্যাপী বিক্ষোভের পর মোরালেস পদত্যাগ করেন। তিনি ঐ নির্বাচনে চতুর্থ মেয়াদে ক্ষমতায় আসার জন্য জয়ী হয়েছেন বলে দাবি করেছিলেন। মোরালেস প্রতারণার কথা অস্বীকার করেছেন। বিক্ষোভে ৩৭ জন নিহত হয় এবং মোরালেসকে মেক্সিকোতে আশ্রয় নিতে বাধ্য করে।



Source link

maria

এই যে, এই প্রবন্ধ পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ. আমি একজন ওয়েব ডেভেলপার, 10 বছর ধরে লিখছি, এবং একজন প্রযুক্তি প্রেমী।