রাশিয়ার অবরোধ বৈশ্বিক খাদ্য সংকট তৈরি করতে পারে বলে সতর্ক করলেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট



ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেন্সকি শনিবার সতর্ক করেছেন যে, তার দেশে রাশিয়ার আক্রমন আন্তর্জাতিক নিয়মতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে এবং একাধিক দেশকে তীব্র অর্থনৈতিক ক্ষতির সম্মুখীন করবে। সিঙ্গাপুরের শাংগ্রি-লা আলোচনায় উপস্থিত ৪২ দেশের মন্ত্রী ও কর্মকর্তাদের সাথে ভিডিও সংযোগের মাধ্যমে কথা বলার সময়ে জেলেন্সকি জোরালো পদক্ষেপের গুরুত্ব তুলে ধরেন। শাংগ্রি-লা একটি গুরুত্বপূর্ণ নিরাপত্তা সম্মেলন।

জেলেন্সকি আরও ব্যাখ্যা করে বলেন যে, এশিয়া ও আফ্রিকার একাধিক দেশ দুর্ভিক্ষ ও খাদ্যাভাবে পড়বে, কারণ রুশ সৈন্যরা ইউক্রেন থেকে খাদ্যশস্যের সরবরাহ বন্ধ করতে অবরোধ বসিয়েছে। ইউক্রেন বিশ্বের সর্বোচ্চ খাদ্য উৎপাদনকারী দেশগুলোর একটি।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট বলেন, “যদি রাশিয়ার অবরোধের কারণে আমরা খাদ্যপণ্য রফতানি করতে ব্যর্থ হই, তাহলে এশিয়া ও আফ্রিকায় বিশ্ব এক চরম ও গুরুতর খাদ্য সংকট ও দুর্ভিক্ষের সম্মুখীন হবে।”

রাশিয়ার সামরিক কর্মকাণ্ডের সাথে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির সরাসরি সম্পর্ক রয়েছে। রাশিয়া জ্বালানির সরবরাহ বন্ধ করে মূল্য বৃদ্ধি করা আরম্ভ করে এবং এখন তারা খাদ্য নিয়েও একই কাজ করছে।

কৃষ্ণ সাগর ও অ্যাজভ সাগরে বন্দর অবরোধ করে রেখেছে রাশিয়া। এর ফলে ইউক্রেনের খাদ্য রফতানি বিশ্ববাজারে পৌঁছতে পারছে না। এটা শুধু ইউক্রেনকেই ক্ষতিগ্রস্ত করছে না বরং সারা বিশ্বকেই করছে বলে মন্তব্য করেন জেলেন্সকি।

অবরোধটিকে একটি “বিশেষ অভিযান” হিসেবে ব্যাখ্যা করেছে রাশিয়া, যার উদ্দেশ্য হল ইউক্রেনের সামরিক সক্ষমতা ধ্বংস করা এবং তাদের বিবেচনায় বিপজ্জনক জাতীয়তাবাদীদের আটক করা।



Source link

maria

এই যে, এই প্রবন্ধ পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ. আমি একজন ওয়েব ডেভেলপার, 10 বছর ধরে লিখছি, এবং একজন প্রযুক্তি প্রেমী।